হালদায় প্রথম ধাপে ছাড়া হলো ১৫ হাজার পোনা 

0
. .

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

হালদায় মা মাছের মজুদ বাড়াতে পোনা অবমুক্ত করলেন হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন।

ধঅবমুক্তকরণে কোন ব্যানার নেই। নেই কোন প্রধান অতিথি শুধুমাত্র হালদার প্রতি যাদের ভালবাসা যারা নিঃস্বার্থে কাজ করে যাচ্ছেন তাদের নিয়েই আয়োজন। আজকে ১৫ হাজার পোনা ছাড়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এক লাখ মাছ ছাড়া হবে হালদায়।

জানা যায়, অতীতে হালদা থেকে সংগৃহিত পোনা প্রক্রিয়াজাত করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বাজারজাত করা হলেও হালদায় ছাড়া হতোনা সেই কার্প জাতীয় মাছ। স্থানীয় হ্যাচারী থেকেই ক্রয় করে কার্প জাতীয় মাছ ছাড়া হতো হালদায়। তাতে হালদার মাছের যে প্রাকৃতিক জিন ব্যাংক সেটা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা ছিল।

তাই এবার উপজেলা প্রশাসন প্রথমবারের মতো হালদা নদীর রেণু প্রক্রিয়াজাত করে হালদায় ছাড়ার উদ্যোগ নিয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ‘দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীর কার্প জাতীয় মা মাছের মজুদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করে। যার মেয়াদ ধরা হয়েছিল গত ৩০ এপ্রিল থেকে ৩০ আগস্ট এবং প্রকল্প গ্রহনের ২০/২৫ দিন পরেই হালদায় ডিম ছাড়ে মা মাছ। তারপর স্থানীয়রা তা সংগ্রহ করে হ্যাচারীতে সনাতন পদ্ধতিতে রেণু উৎপাদন করে।

এ প্রকল্পের আওতায় গত জুন মাসেই স্থানীয়দের কাছ থেকে এককেজি রেণু ক্রয় করে উপজেলার তত্ত্বাবধানে গড়দুয়ারা ইউনিয়নের মডেল পুকুর নামে ঘোষিত একটি পুকুরে প্রক্রিয়াজাত করে। যা থেকে চার মাসে এক লাখ পোনা মাছ হয়। যার আকার সাড়ে ৫ইঞ্চি থেকে ৬ইঞ্চিতে দাড়ায়। ধাপে ধাপে এই পোনা এখন হালদাতে ছাড়া হবে।

কোন মন্তব্য নেই