ডিজিটাল মানচিত্রের মাধ্যমে জানা যাবে রপ্তানীমুখী তৈরী পোশাক কারখানার সকল তথ্য

0
.

বাংলাদেশের রপ্তানীমুখী তৈরী পোশাক কারখানার সকল তথ্য একটি ডিজিটাল মানচিত্রের মাধ্যমে (গুগল ম্যাপের ন্যায়) পাওয়া যাবে। দেশের সকল রপ্তানীমুখী তৈরী পোশাক কারখানার অবস্থান, কি ধরাণের পোশাক রপ্তানী করে, কোন কোন দেশে,কোন ক্রেতার কাছে বিক্রি করে, কারখানার শ্রমিক সংখ্যা কতো,কারখানার সার্বিক ব্যবস্থাপনা কেমন, কারখানার থেকে সবচেয়ে নিকটে কোন হাসপাতাল ও ফায়ার স্টেশন রয়েছে এই সব তথ্য পাওয়া যাবে তৈরীকৃত ডিজিটাল এই  ম্যাপে।

আজ শনিবার (২৬ অক্টোবর) চট্টগ্রাম বিজিএমইএ ভবনের আয়োজিত ‘ম্যাপড ইন বাংলাদেশ’র এক পরিচিতি সভায় বক্তারা এসব তথ্য জানান।

বাংলাদেশ তৈরী পোশাক প্রস্তুত ও রাপ্তানীকারক সমিতি (বিজিএমইএ) ও বাংলাদেশে নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স এ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ) এর সহযোগিতায় এবং সেন্টার ফর অন্ট্রেপ্রেনরশিপ ডেভেলপমেন্ট (সিইউ), ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয় এর উদ্যোগে এই সভার আয়োজন করা হয়।

ম্যাপড ইন বাংলাদেশ প্রকল্পের দলনেতা এবং সেন্টার ফর অন্ট্রেপ্রেনরশিপ ডেভেলপমেন্ট (সিইউ) এর উপদেষ্টা প্রফেসর ড. রহিম বি. তালুকদার এর সভাপতিত্বে পরিচিতি সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন,বিজিএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন,বিকেএমইএ’র পরিচালক মির্জা মো: আকবর আলী চৌধুরী। সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ‘ম্যাপড ইন বাংলাদেশ’ এর প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ হাসিব উদ্দিন হুসাইন। এছাড়াও সভায় বিজিএমইএ,বিকেএমইএ ও ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিজিএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম বলেন, ১৯৭৮ সালে চট্টগ্রাম থেকেই গোড়া পত্তন হয়েছিল বাংলাদেশের তৈরী পোশাক রপ্তানীর। বর্তমানে সারা বাংলাদেশের তৈরী পোশাক কারখানাগুলোর পাশপাশি চট্টগ্রামের পোশাক কারখানা গুলোতে যে স্বচ্ছতা,জবাবদিহিতা ও প্রতিযোগিতাপূর্ণ সক্ষমতা অর্জিত হয়েছে তা বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে এই প্রকল্প সূদূর প্রসারী ভূমিকা রাখবে। তৈরী পোশাকের অন্যান্য উন্নয়ন কর্মকান্ডের অনূরুপ এই প্রেকল্পে ও সার্বিক সকল বিষয়ে বিজিএমইএ সহযোগিতা করবে।

পোশাক শিল্পের রপ্তানী-আমদানী কার্যক্রমের ৮০ শতাংশই চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর দিয়ে হয় জানিয়ে তিনি আরো বলেন, বন্দর সুবিধা থাকার কারনে চট্টগ্রামকে তৈরী পোশাকের জন্য পরিপূর্ণভাবে ব্যবহার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

সভায় প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ হাসিব উদ্দিন হুসাইন বলেন, ফ্যাক্টরি ব্যবসা সম্প্রসারণের সাথে সাথে সরকার,নগর পরিকল্পনাবিদ,গবেষক এবং সামাজিক সংগঠনের কাছে এই মানচিত্রের প্রদত্ত তৈরী পোশাক শিল্পের বিস্তারিত এবং অন্যান্য তথ্যাবলী সহায়ক ভূমিকা রাখবেন। তৈরী পোশাক শিল্পের অর্জনগুলো এখানে প্রদর্শন করা যাবে।  এই মানচিত্রের ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা তৈরী পোশাক শিল্পের আরো অনেক গবেষনা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে পারবো।

কোন মন্তব্য নেই