গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে ধর্ষণ করে গ্রেফতার সাবেক ছাত্রলীগ নেতা

0
.

বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ভোলার মনপুরার প্রত্যন্ত চরপিয়ালের চরে নিয়ে আড়াই বছরের শিশু সন্তানের সামনে মাকে গণধর্ষণ করেছেন চার দুর্বৃত্ত, এমন খবর পেয়ে স্পিডবোটে চেপে ঘটনাস্থলে যান সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম। এরপর অভিযুক্ত চার ধর্ষককে মারধর করে টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে নিজেই ধর্ষণ করেন ওই নারীকে। ঘটনাটি কাউকে জানালে ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দেন তিনি।

পরে পুলিশ সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেফতার করেছে।

গতকাল রবিবার রাত সোয়া ১২টার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করে মনপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন বলেন, অন্য আসামিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ভুক্তভোগী গৃহবধূকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ভোলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে, গত শনিবার (২৬ অক্টোবর) বিকেলে গণধর্ষণের ঘটনার পর ছয়জনকে আসামি করে থানায় মামালা দায়ের করেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ।

স্থানীয় পুলিশের কাছ থেকেই জানা গেছে ঘটনার সত্যতা।

মনপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন জানান, চরফ্যাশনের দক্ষিণ আইচা বাবার বাড়ি থেকে বেতুয়া লঞ্চঘাট হয়ে শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় স্পিডবোটে ওই নারী যাত্রী নিজের শিশু সন্তানকে নিয়ে মনপুরায় শ্বশুর বাড়ি ফিরছিলেন।

“পথে বোটে থাকা যাত্রী দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নের রহমানপুর গ্রামের বেলাল পাটোয়ারী (৩৫), মো. রাসেদ পালোয়ান (২৫), শাহীন খান (২২) ও কিরন (২৬) জোরপূর্বক বোটটি পার্শ্ববর্তী নির্জন চর পিয়াল এলাকায় নিয়ে আড়াই বছরের শিশু সন্তানের সামনেই গৃহবধূকে দলবদ্ধ ধর্ষণ করে।”

ওসি আরও জানান, পরে খবর পেয়ে বোটের মালিক দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম (৩০) আরেকটি স্পিড বোট নিয়ে চর পিয়াল ঘটনাস্থল গিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন।

“নজরুল ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করেন এবং বিষয়টি নিয়ে কথা বললে সেটি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ারও হুমকি দেন।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অলি উল্লাহ কাজল জানান, চরে থাকা মহিষের মালিক ও রাখালরা ঘটনাটি তাকে জানালে তিনি মনপুরা থানার ওসিকে বলেন।

ঘটনাস্থলে পুলিশের পৌঁছালে তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চর পিয়াল থেকে পুলিশ ওই নারীকে উদ্ধার করে মনপুরা থানায় নিয়ে যায়।

মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন আরো জানান, অভিযুক্তদের আটক করতে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।

কোন মন্তব্য নেই