হিন্দু যুবক মুসলিম সেজে বিয়ে: স্ত্রীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা

2
.

প্রকৃত পরিচয় গোপন রেখে মুসলিম যুবক সেজে প্রতারণার মাধ্যমে বিয়ে করে ইয়াবা দিয়ে প্রেমিকা রোজিনাকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই পুলিশের জালে ধরা পড়ে ফেঁসে গেলেন ভন্ড প্রেমিক নয়ন ভট্টাচার্য্য।

নগরীর বাকলিয়া থানাধীন শাহ আমানত হাউজিং সোসাইটিতে এ ঘটনা ঘটেছে।

বাকলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ নেজাম উদ্দিন পাঠক ডট নিউজকে জানায়, প্রেমিকার পাওনা টাকা পরিশোধ না করতে এবং ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে প্রেমিকার রোজিনার বাসায় কৌশলে ইয়াবা রেখে থানায় খবর দিয়েছিল প্রতারক নয়ন ভট্টাচায্য। বিষয়টি পুলিশের সন্দেহ হলে জেরার মূখে আসল ঘটনা খুলে বলে পুলিশকে। এর পরই এই প্রতারক প্রেমিককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতার হওয়া নয়ন ভট্টাচায্য রাউজানের নোয়াপাড়া, পথের হাট ব্রাহ্মন পাড়ার জলকুমারী কালি বাড়ীর স্বপন ভট্টাচার্য্যের ছেলে।

জানাগেছে, মোহাম্মদ মাসুদ রানা নামে এক ব্যক্তি ২০১৭ সালে পরিচয় গোপন করে রোজিনা আক্তার (৩২) এক নারীকে কোর্টের মাধ্যমে বিয়ে করেন।  বিয়ের পর মাসুদ রোজিনার জন্য জায়গা ও দোকান কেনার নাম করে বিভিন্ন সময় তার কাছ থেকে নয় লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও তার ১০ ভরি ওজনের স্বর্ণ নিয়ে বিক্রয় করে টাকা আত্নসাৎ করে। গত মাস পূর্বে  তার স্ত্রী রোজিনা আক্তার জানতে পারে যে, সে একজন হিন্দু এবং তার নাম নয়ন ভট্টাচার্য ও তার আগের একজন স্ত্রী আছে এবং তাহার দুইটি কন্যা সন্তান আছে।

রোজিনা আক্তার বুঝতে পারে যে, সে তার টাকা ও স্বর্ণালংকার কুক্ষিগত করার জন্য মিথ্যা মুসলিম নাম পরিচয় ধারন করে বিবাহের নাটক করে। সে জায়গা দোকান না কিনে বিভিন্ন টালবাহানা করতে থাকে। সে টাকা আজ দিবে কাল দিবে বলিয়া কালক্ষেপন করে। এরমধ্যে সে রোজিনা আক্তোরকে জোরপূর্বক কয়েক বার ধর্ষন করে। গতকাল রবিবার সকাল ১১টার দিকে ভট্টাচার্য বাসায় আসে খাওয়া দাওয়া করে এবং রাতে পাওনা টাকা হইতে ৫০,০০০/-টাকা দিতে সম্মত হয়।

বাকলিয়া থানা সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাত পৌনে ১২টার দিকে নয়ন ভট্টাচার্য বাকলিয়া থানায় খবর দেয় যে  এই মহিলার বাসায় ইয়াবা ট্যাবলেট আছে। পুলিশ পুরো ঘর তল্লাশি করে ইয়াবা ট্যাবলেট না পেয়ে পুলিশের সন্দেহ হয়। নয়ন ভট্টাচার্য পুলিশকে বলে যে, ফ্লাই উডের ওয়ার ড্রপের নিচের ড্রয়ার খলে  দেখেন। তার এই কথা পুলিশের আরো সন্দেহ হলে পুলিশ তাকে খুলিয়া দেখাতে বলে । তখন সে ফ্লাই উডের ওয়ার ড্রপের নিচের ড্রয়ার হতে তার নিজ হাতে নীল রংয়ের দুইটি ছোট পলি প্যাকেট বের করে। প্যাকেট গুলো খুলে কথিত লালচে রংয়ের ২৯০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বাকলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মঈন উদ্দিন পাঠক ডট নিউজকে বলেন, নয়নের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও অর্থ আত্নসাতের মামলা দায়ের করা হয়েছে। সে সুকৌশলে রোজিনাকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে চেয়েছিলো।

2 মন্তব্য

  1. বাংলাদেশের ভিতরে যতসভ অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে হিন্দুদের কারসাজিতে হচ্ছে। মুসলিম লেবাসে দাড়ি ঠুপি পাঞ্জাবী পরেই তারা অপকর্ম করচে।আর বদনাম হচ্ছে মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্র অথবা ছাত্র শিবিরের উপর তাহা বর্থাচেছ। বাংলাদেশ পুলিশের ভিতরে নামে বেনামে ভারতীয় নাগরিকদের পুলিশের চাকোরি দিয়ে আর অশান্তি শৃষ্টি করার জন্য তাদের পথ সুগম করে দেওয়া হইয়াছে। সারা বাংলাদেশের ভিতরে তদন্ত করলে দেখাযাবে বি এন পি অথবা ছাত্র শিবিরের উপর অথবা আলিম উলামাদের উপর এবং সম্মানিত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের উপর নৃশংস ভাবে মারধর করচে হিন্দু পুলিশরা। মসজিদে মন্দিরে হিন্দুরা অপকর্ম করে ধুষদেওয়া দায়ভার মুসলমানদের উপর চাপানোর গ্রির্ণ অপপ্রয়াস চালানো হচ্ছে। বাংলাদেশের মুসলিম গুয়েন্দাদের সর্তক অম্ভওতায় থাকলে বড়ো বড় অশান্তি থেকে দেশ রক্ষা পাবে। এবং দেশের ভিতরে শান্তি বিরাজওমান স্থ্যায়ী ভাবে থাকবে। একঠু প্রর্যভেক্ষণ করলেই তার সুফল পাওয়া অপরিহার্য দেখতে পাওয়া যাবে।