স্বৈরাচারের কবল থেকে অচিরেই রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনিয়ে নেবে জাগ্রত যুব সমাজ: চট্টগ্রাম যুবদল

5
.

৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের উদ্যোগে আজ ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত ষোলশহরস্থ ঐতিহাসিক বিপ্লব উদ্যানে পুস্পস্তবক অর্পণ শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দিপ্তীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ শাহেদ’র পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন নগর যুবদল নেতৃবৃন্দ।

এ সময় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক সিপাহী বিপ্লবের মাধ্যমে দেশের হারানো গণতন্ত্র, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সিপাহী ও জনতা মিলে ক্যান্টেমেন্টের বন্দিদশা থেকে স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীরউত্তমকে মুক্ত করেছিলেন। আজ দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসের চেতনায় অণুপ্রাণিত হয়ে ক্ষমতা লিপ্সু চক্রের কারাগার থেকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে তারুণ্যের অহংকার দেশনায়ক তারেক রহমানকে স্বদেশে ফিরিয়ে এনে স্বৈরাচারের কবল থেকে অচিরেই রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনিয়ে নেবে জাগ্রত যুব সমাজ।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নগর যুবদলের সহ-সভাপতি আজমর হুদা রিংকু, এস এম শাহ আলম রব, মো. শাহেদ আকবর, ফজলুল হক সুমন, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, আবদুল গফুর বাবুল, সাহাব উদ্দিন হাসান বাবু, মোহাম্মদ মুছা, নাসির উদ্দিন চৌধুরী নাসিম, আবু সুফিয়ান, পাঁচলাইশ থানা যুবদলের আহবায়ক মোহাম্মদ আলী সাকি, যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল পারভেজ, মো. সেলিম উদ্দিন রাসেল, তৌহিদুল ইসলাম রাসেল, সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, রাজন খান, ওমর ফারুক, হেলাল হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান টিপু, ওসমান গণি, শাহজালাল পলাশ, জাফর আহমদ খোকন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য নূর হোসেন উজ্জ্বল, আজিজুল হক মাসুম, আলাউদ্দিন, মোহাম্মদ আলী, এনামুল হক এনাম, এস এম বখতেয়ার উদ্দিন, ইফতেখার শাহরিয়ার আজম, দিদারুল আলম, আসাদুজ্জামান রুবেল, সহ-সম্পাদক কামাল উদ্দিন, মনোয়ার হোসেন মানিক, জিয়াউল হক মিন্টু, মো. জহিরুল ইসলাম জহির, মো. মনজুর আলম, মো. হাসান, হামিদুল হক, হাফেজ কামাল উদ্দিন, এস এম ফারুক, ইলিয়াছ হাসান মঞ্জু, আশ্রাফ উদ্দিন, সিরাজ সিকদার, দেলোয়ার হোসেন, ওমর ফারুক স্বপন, আবু আহমেদ মিয়া, গুলজার হোসেন মিন্টু, ইদ্রিস আলম, আরিফ হোসেন, শেখ কামাল আলম, মো. জসিম, আনোয়ার হোসেন, নগর যুবদলের সদস্য লতিফুর বারী সুমন, কলিম উল্লাহ, আবদুল করিম, শওকত খান রাজু, মনজুর আলম মঞ্জু, মোর্শেদ কামাল, শাহেদ হোসেন খান পারভেজ, ইউনুস মুন্না, মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, আবু বক্কর বাবু, মো. সাদেক, এস এম শাহবাজ, মো. হাসান, মো. ইউনুস, ফয়সল হোসেন মানিক, জহিরুল ইসলাম, মেহেদী হাসান প্রমুখ।

5 মন্তব্য

  1. ৭ ই নভেম্বর হলো মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস’। কারণ আজকের এই দিনে এই জিয়াউর রহমান একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা খালেদ মোশাররফকে নির্মমভাবে হত্যা করে তার সামরিক বাহিনীর মাধ্যমে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জাতীয় চার নেতাকে কারাগারে হত্যার মাধ্যমে গণঅভ্যুত্থান সৃষ্টি হয়েছিল তার মূল নাট্যগুরু ছিল এই জিয়াউর রহমান। আজকের দিনের চেতনায় বিএনপি’র রাষ্ট্র ক্ষমতা ছিনিয়ে নেয়া মানে আবারও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধাদের পরিবারের উপর বর্বরতা চালানোর ষড়যন্ত্র করা।

  2. বিএনপির মত দল কখনো কি ক্ষমতায় তাদের যোগ্যতা দিয়ে এসেছিল যে এখন আসবে ? বিএনপির মত দল ভাবে যে তাদের মত দুর্নীতির দলের কোনো জনসমর্থন আছে ,কিন্তু তাদের এই ধারনা যে বূল সেটা দেশের জনগন ইতি মধ্যে বুঝিয়ে দিয়েছে । আর দেশের জনগন এখনো বিএনপির ক্ষমতায় থাকা সেই কালো দিন গুলোর কথা ভুলে নি ।

  3. বিএনপির মত দল যে কখনো সঠিক ভাবে ক্ষমতায় আসতে পারে নি । তারা সব সময়ই দেশের জনগনের অধিকার কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় এসে ছিলেন । বিএনপি নেতাদের বুঝা দরকার যে দেশের জনগন প্রমান করে দিয়েছে বিএনপির মতো সন্ত্রাস,রাজাকার,জঙ্গিদের দেশের মানুষ আর ক্ষমতায় দেখতে চায়না।কারন জনগন আর বিএনপিকে বিশ্বাস করে না।

  4. বর্তমান সরকারকে আপনারা স্বৈরাচার সরকার বলছেন কারণ হলো বর্তমান সরকারের আমলে আপনারা কোন প্রকার দুর্নীতি ও অপকর্মের সঙ্গে সহজেই যুক্ত হতে পারছেন না। খালেদা জিয়া সরকার থাকার সময় আপনারা সকলে নানা অপকর্ম করে অবৈধ টাকার মালিক হতে পেরেছিলেন। কিন্তু শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর থেকে আপনাদের সকল সুযোগ-সুবিধা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আপনারা এই ধরনের কথা বলছেন সেটা আমরা জানি।

  5. খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিবেন বলছিলেন খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার আগে থেকে। কিন্তু আজ খালেদা জিয়া জেলে রয়েছে প্রায় দুই বছরের অধিক সময় হয়ে গিয়েছে। এখনো পর্যন্ত আপনারা কিছু করতে পারেনি। এমনকি আপনাদের মুখে শুনেছিলাম আপনারা নাকি স্বেচ্ছায় কারাবরণ করবেন কিন্তু সেটাও করতে দেখলাম না। এর মধ্যমেই বোঝা যায় আপনারা শুধুমাত্র লোক শোনানো কথা বলেন। মূলত আপনাদের মধ্যে খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে কোনো আগ্রহ নাই।