শেখ হাসিনা হিতাহিত জ্ঞানশূণ্য হয়ে পড়েছেন: রিজভী

4
.

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হিতাহিত জ্ঞানশূণ্য হয়ে পড়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।  আজ  বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলেন এ মন্তব্য করেন তিনি।

রিজভী বলেন, আপনারা লক্ষ্য করেছেন, গতকাল সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যা জিয়াউর রহমানের সৃষ্টি। রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে নিজেদের অনতিক্রম্য দুর্বলতা ও ব্যর্থতার গ্লানি ঢাকতেই প্রধানমন্ত্রী আজগুবি কথা বলছেন। উন্মাদ অভিগ্রস্ত না হলে এ ধরণের কথা বলা যায় না। আজকে চারদিকে মানুষ যখন বিএনপির অর্জনগুলোর প্রশংসা করছে, ঠিক এতেই জ্ঞানশূন্য হয়ে পড়েছেন সরকার প্রধান।

তিনি বলেন, ইতিহাস সাক্ষী, দেশের জনগণ সাক্ষী, মিয়ানমার বারবার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশের দিকে ঠেলে দিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করতে চেয়েছিলো। কিন্তু ৭৮ সালে সেটি শক্ত হাতে মোকাবেলা করেছেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। ৯২ সালেও রোহিঙ্গা সংকট কঠোর ও সফলভাবে মোকাবেলা করেছেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের যারা খবর রাখেন, তারাও এই কথাগুলি উল্লেখ করছেন।

বিএনপির এই মুখ্যপাত্র বলেন, আমরা এবারও বলেছি, রোহিঙ্গা সংকট কোনো দলীয়ভাবে দেখার বিষয় নয়, এটা একটা জাতীয় সংকট। এই সংকট বাংলাদেশের অস্তিত্বের প্রশ্ন। ফলে জাতীয় সংলাপ ডাকুন। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সংলাপে বসুন। রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে তার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগান। রোহিঙ্গা ইস্যু দলীয় স্বার্থে ব্যবহার করতে গিয়ে এখন সমস্যাটিকে উপক্রান্ত অবস্থায় সমাধান না করে লেজে গোবরে পাকিয়ে ফেলা হয়েছে। সরকার প্রধান নিজের ইমেজ তৈরীর হাতিয়ার হিসেবে এটিকে ব্যবহার করতে গিয়ে ভয়ঙ্কর মানবদুর্যোগের সৃষ্টি করেছেন।

4 মন্তব্য

  1. শেখ হাসিনাকে উন্মাদ ও অভিজ্ঞতা বলার আগে খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পর থেকে আপনি যা যা বলেছেন সেটা একবার নিজে কোন ভিডিওর মাধ্যমে দেখেন। তাহলে জানতে পারবেন আপনার একটা হিতাহিত জ্ঞান অনেক আগেই হারিয়ে গিয়েছে। সেই সাথে আপনি যে জ্ঞানশূন্য সেটাও আপনি আপনার কথাগুলোর মাধ্যমে জানতে পারবেন। একই সাথে এটাও বলে রাখি জিয়াউর রহমান রোহিঙ্গাদের আমাদের দেশে আসার পথ খুলে দিয়েছিল সেটা জাতি মনে রেখেছে এবং কিভাবে তাড়িয়েছিল সেটাও আমরা জানি আর সেই জন্য শেখ হাসিনা মন্তব্য করেছেন। তাই তার হিতাহিত জ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন তোলার অধিকার আপনার নাই।

  2. আপনাদের মত ভিত্তিহীন ও অহেতুক কথা বলার অভ্যাস শখ হাসিনা থেকে নেই। তাই তাঁকে নিয়ে কিছু বলার আগে তার কথাটি বুঝার চেষ্টা করুন। শেখ হাসিনার যে কথাটি বলেছেন সেটা সম্পূর্ণ সত্যতা রয়েছে আর সেই জন্য তার কথাটা সকলে মেনে নিয়েছে। কিন্তু আপনারা মানতে পারছেন না কারণ এই কাজটি আপনাদের নেতা জিয়াউর রহমান করেছে বলে। কিন্তু দেশের জনগন হিসেবে আমরা শেখ হাসিনার কথাটা মানছি কারণ তিনি কি কোন মিথ্যা বলেন নাই।

  3. বর্তমানে বিএনপির নেতাকর্মীরা নিজেদের দূর্বল জায়গা গুলো জনগনের সামনে তুলে ধরছে কারণ শেখ হাসিনাকে নিয়ে যে তারা দিনের পর দিন বাজে কথা বলে বেড়াচ্ছে । শেখ হাসিনা দশের উন্নয়নের নেত্রী তিনি সব সময় দেশের উন্নয়নের জন্যে কাজ করে এসেছে তাকে নিয়ে এইসব বাজে কথা কখনো দেশের জনগন মেনে নিবে না ।

  4. বর্তমানে শেখ হাসিনার জ্ঞান শূণ্যতা নিয়ে চিন্তা করার আগে আপনারা আগে নিজেদের কথা ভাবেন ? বিএনপির মত দল যারা এখন দিশেহারা হয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় তাদের মুখে দেশের উন্নয়নের নেত্রীকে এইসব বাজে কথা মানায় যায় না । বিএনপির এইসব বাজে কথা কেউ শুনে না ।