চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সমাবেশে ডা: শাহাদাত হোসেন
৪ মাসে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে নিয়েছে পেঁয়াজ সিন্ডিকেট

0
.

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের বাজারে এখন চলছে তুঘলকি কান্ড। আজ শুধু পেঁয়াজের দামে বাড়েনি, প্রত্যেকটি দ্রব্যমূল্য লাগামহীনভাবে বেড়েই চলেছে। পেঁয়াজ সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণে সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। অসাধু ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের বাজার নিয়ে দুর্বৃত্তপনা নির্বিঘ্নিই চালিয়ে যাচ্ছে। অতি মুনাফালোভী সিন্ডিকেটগুলোর কারসাজীতে বাজারে আরো দুর্মূল্য হয়ে উঠেছে পেঁয়াজ। এখন হাজার হাজার পচা পেঁয়াজ কর্ণফুলী নদী ও চাকতাই খালে ভাসছে।

ডা: শাহাদাত আরো বলেন, মজুদদাররা পেঁয়াজ গোডাউনে রেখে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা গত ৪ মাসে লুটপাট করে নিয়েছে। প্রতিটি সেক্টরকে দুর্নীতির মহাসমুদ্রে পরিণত করেছে সরকার। জনগণের এই টাকার হিসাব বাংলাদেশের মানুষকে কড়ায় গন্ডায় বুঝিয়ে দিতে হবে।

তিনি আজ (১৭ নভেম্বর) রবিবার সকালে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে পেঁয়াজ সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

এতে তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন পেঁয়াজ লবণ ছাড়া রান্না করা যায়। কিন্তু সে রান্না কী সুস্বাদু হবে? যেমন সুস্বাদু নয় তার বর্তমান সংসদও। সংসদে এমন এমন সদস্য রয়েছে যারা সংবিধানের অনুচ্ছেদও বলতে পারেন না। এই সংসদের ৮০%ই ব্যবসায়ী। সেখানে রয়েছে ইয়াবা ব্যবসায়ী, ক্যাসিনো সম্রাট ও মানব পাচারকারীরা।

তিনি চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় ব্রিকফ্লিড সড়কের পাশের একটি ভবনের গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে ৭ জন নিহত ও বহুমানুষ আহত হওয়ায় চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেন।

সমাবেশে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, প্রত্যেকদিন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ছে। সাধারণ মানুষের জাীবন যাত্রায় নাভিশ্বাস উঠেছে। বিএনপির পক্ষ থেকে মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে মানববন্ধনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হলে চট্টগ্রামের প্রশাসন এই কর্মসূচি পালনে বাঁধা সৃষ্টি করেছে। বিএনপির এই মানববন্ধন কর্মসূচিতেও তারা ভয় পচ্ছে। দেশে এখন গণতন্ত্রের নামে স্বৈরতন্ত্র চলছে। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি রেখে আওয়ামীলীগের নেতারা এখন লম্বা লম্বা কথা বলছেন। তারা বিএনপিকে হাত-পা বেঁধে পুকুরে সাঁতার কাটতে বলছে। প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিএনপিকে দমিয়ে রাখতে চাচ্ছে। বেগম খালেদা জিয়াকে যারা কারাগারে নিয়েছে তাদেরকেও একদিন বিচারের কাটগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দিন।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, সবুক্তগীন সিদ্দিকী মক্কি, আশরাফ চৌধুরী, ইকবাল চৌধুরী, জাহিদুল করিম কচি, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল উদ্দিন, ইসকান্দর মির্জা, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, আবদুল মান্নান, আনোয়ার হোসেন লিপু, শাহেদ বক্স, সামশুল হক, গাজী সিরাজ উল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মনজুর আলম চৌধুরী মনজু, প্রচার সম্পাদক শিহাব উদ্দিন মুবিন, সম্পাদকবৃন্দ ফাতেমা বাদশা, এইচ এম রাশেদ খান, ইয়াকুব চৌধুরী, রাহেলা জামান, ডা. এস এম সরওয়ার আলম, আবদুল বাতেন, থানা বিএনপির সভাপতি মনজুর রহমান চৌধুরী, মো. সেকান্দর, নগর বিএনপির সহসম্পাদকবৃন্দ রফিকুল ইসলাম, মো. ইদ্রিস আলী, মো. শাহজাহান, জেলী চৌধুরী, বেলায়েত হোসেন বুলু, আবু মুসা, শফিক আহমদ, আবুল খায়ের মেম্বার, আবদুল হাই, আলী আজম, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ জাকির হোসেন, নগর সদস্য ইউসুফ সিকদার, জাকির হোসেন, আলী ইউসুফ, কাউন্সিলর জেসমিনা খানম, রফিক সর্দার, রেজিয়া বেগম মুন্নি, শাহেদা বেগম, মো. ইলিয়াস, হাজী নুরুল হক, মনিরুজ্জামান টিটু, শাহনেওয়াজ চৌধুরী মিনু, এড. আবদুল আজিজ, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আকতার খান, নবাব খান, মো. রফিক চৌধুরী, রাসেল পারভেজ সুজন, সেকান্দর আলম, ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান রিপন, জাহিদ উল্লাহ রাশেদ, হাজী মো. এমরান, হাসান ওসমান চৌধুরী, জসিম মিয়া, আবু ফয়েজ, সাব্বির আহমদ, সিরাজুল আলম মুনসি, মনজুর কাদের, হাজী মো. জাহেদ, অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ জসিম উদ্দিন চৌধুরী, আমান উল্লাহ আমান, জিয়াউর রহমান জিয়া, জমির উদ্দিন নাহিদ, আসাদুর রহমান টিপু, মো. আলাউদ্দিন, রাজন খান, মো. নওশাদ, মেজবাহ উদ্দিন মিন্টু, জসিম উদ্দিন, মো. সালাহ উদ্দিন, মো. দিদারুল আলম প্রমুখ।

কোন মন্তব্য নেই