আগামিতে নির্বাচিত হলে আবাসন বঞ্চিত সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট তৈরী করবো: মেয়র নাছির

0
.

আগামিতে মেয়র নির্বাচিত হলে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিত্বে শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিং এলাকায় আবাসন বঞ্চিত সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট তৈরী করবেন বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি বলেছেন, বিভিন্ন সময়ে নিজের কর্মকান্ড নিয়ে গণমাধ্যমে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশিত হলেও এ নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে কখনো কৈফিয়ত চাইনি।

আজ শনিবার চট্টগ্রাম মহানগরীর শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিং সোসাইটি চত্বরে ফ্ল্যাট ব্লক কাম শপিং ও কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মেয়র বলেন, আমাকে যখন সাংবাদিক হাউজিং এলাকার নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিয়ে জানানো হয় আমি চেষ্টা করেছি সহযোগিতা করার জন্য। এটা এখন সমাধান হয়েছে। এখন এখানে ভবন নির্মাণ করতে হবে। সিটি নির্বাচন সন্নিকটে। আমি জানি না, হয়তো দল বিবেচনা করবে, মনোনয়ন কাকে দেবেন না দেবেন। তারপর জনগণের উপর নির্ভর করে, উনারা কাকে রায় দেবেন। তিনি বলেন, যদি আমি মেয়র নির্বাচিত হই, তাহলে আমি সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট নির্মাণকে অগ্রাধিকার দেব, কাজটি করবো।

সংগঠনের পরিচালক মহসীন কাজীর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক কো আপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিএফইউজের সহ সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম প্রেসসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, প্রবীণ সাংবাদিক মাঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত, শামসুল হক হায়দরী, প্রকল্পের কনসালট্যান্ট, রাশিয়ার অনারারি কনসাল ও সিডিএ’র বোর্ড সদস্য স্থপতি আশিক ইমরান, মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু ও সুখময় চক্রবর্তী প্রমুখ।

এসময় অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক কোঅপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির সাবেক সভাপতি অঞ্জন কুমার সেন, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি কাজী আবুল মনসুর, বিএফইউজের সাবেক সদস্য মোহাম্মদ ফারুক, হামিদ উল্লাহসহ সিনিয়র সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, আমি সাংবাদিকবান্ধব একজন মানুষ। আমার সাথে সাংবাদিকদের আত্মার বন্ধন ছিল, এখনো আছে। আমি বিশ্বাস করি, যেখানে থাকি যে অবস্থাতেই থাকি না কেন এটি আমৃত্যু থাকবে। পৃথিবীতে যতদিন বেঁচে থাকবো এই সম্পর্কটা ততদিন থাকবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে কারো পক্ষে নয়, আবার বিপক্ষেও নই। আমি সাংবাদিক মাত্রই সবাইকে সম্মান করার পক্ষপাতী। সবার সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখার পক্ষপাতী।

মেয়র বলেন, আমি যেহেতু রাজনীতি করছি, আমাকে নিয়ে আলোচনা থাকবে, সমালোচনা থাকবে, পর্যালোচনা থাকবে, এটা বাস্তব। জীবনে অনেক কঠিন সময়ের মুখোমুখি হয়েছি। কিন্তু আমি কাউকে কখনো জিজ্ঞেস করিনি, এই নিউজটি আপনি কেন করলেন, কী কারণে করলেন? কোন কিছু বলিনি। উনি করেছেন উনার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে, ভালো-মন্দ যাই হোক আমার বিপক্ষে গেছে। কিন্তু আমি কিছু বলি না। আমি সবার সাথে সুসম্পর্ক রাখার চেষ্টা করি।

পরে মেয়র শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিং এলাকায় আবাসন বঞ্চিত সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট ব্লক কাম শপিং ও কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন, ফলক উন্মোচন ও উদ্বোধন করেন। এসময় মোনাজাত পরিচালনা করেন শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিং জামে মসজিদের খতির মাওলানা নজরুল ইসলাম আশারফী। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

কোন মন্তব্য নেই