পটিয়ায় বিদেশ ফেরত ২জন কোয়ারেন্টাইনে: ইউএনও’র প্রচারপত্র বিলি

0
.

পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রামের পটিয়ায় মধ্যপ্রাচ্যের আরব আমিরাত (ইউএই) ও কুয়েত থেকে আসা দুই অুসস্থ ২জন প্রবাসী তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন। মঙ্গলবার তারা হাসপাতালে আসলে চিকিৎসক তাদের ১৪ দিনের জন্য হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ জাবেদ। তিনি জানান, ‘আরব আমিরাত ও কুয়েত থাকা আসা একজন পুরুষ ও একজন মহিলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। তাদের শরীরে তাপমাত্রা বেশি অনুভব হয় এবং মাথা ব্যথা ও সর্দি ছিল। তাদের আগামী ১৪ দিনের জন্য হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়ে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

এদিকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারহানা জাহান উপমা প্রচারাভিযান চালিয়েছেন। তিনি উপজেলার কয়েকটি পয়েন্টে পথচারী, বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ও শিক্ষার্থীদের মাঝে সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিলি করেন। মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত এ প্রচারপত্র বিলি করা হয়।

পটিয়া উপজেলা হাসপাতাল এলাকা, পটিয়া উপজেলা পরিষদ সম্মুখ এলাকা, পোস্ট অফিস, ডাকবাংলো, বাস স্টেশন, আদালত রোড়, বৈলতলী রোড় ও স্টেশন রোড়ে সচেতনতামূলক মাইকিং এবং প্রচারপত্র বিলি করেছেন ইউএনও।

ইউএনও ফারহানা জাহান উপমা বলেন, পটিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় নোভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধের লক্ষ্যে প্রচারপত্র বিলি করে জনসচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা করছি। করোনাভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে প্রয়োজনীয় নিয়ম-কানুন মেনে চলার জন্য সচেষ্ট থাকতে হবে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আপাতত সব ধরনের জনসমাগমকে নিরুৎসাহিত করব, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের মাঝে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত প্রচারপত্র বিলি চলমান থাকবে। উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জনসমাগম ছাড়াই সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাতে হবে। মসজিদে মসজিদে ইমামরা প্রচারণা চালাবেন।

তিনি আরোও বলেন, সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত হয় এমন প্রচারণা চালানো যাবে না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ায় এমন প্রচারণা করা যাবে না। সচেতনতামূলক প্রচারণার নামে কেউ আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কোন মন্তব্য নেই