হাটহাজারীতে অভাবের কারণে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী’র আত্মহত্যা!

0
.

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

হাটহাজারী উপজেলার ধলই ইউনিয়নের মুনিয়া পুকুরপাড় এলাকায় শামসুন নাহার (৬০) নামে এক মহিলার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ রবিবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) সকালে নিজ বাড়ি থেকে অনেক দুরে মুনিয়াপুকুর পাড় এলাকার বৈদ্যপাড়ার মন্দির সংলগ্ন পুকুরপাড়ে গাছের ডালের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত নারী উপজেলার ধলই ইউনিয়নের পশ্চিম ধলই গোলাফ শাহ ফকির বাড়ির বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত রশিদ আহাম্মদের স্ত্রী।

হাটহাজারী মডেল থানার এসআই প্রদীপ পাঠক ডট নিউজকে জানান, সকাল ৮টার দিকে স্থানীয়রা লাশটি দেখে থানায় খবর দিলে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এসআই কবিরসহ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশটি উদ্ধার কর হয়। প্রাথমিকভাবে আমরা জেনেছি তিনি আর্থিক অভাবের কারণে আত্মহত্যা করেছেন।

নিহতের ছেলে রাজমিস্ত্রি মো. শাহ আলম প্রকাশ বাপ্পু জানান, শনিবার বিকেলে কাজ সেরে বাড়ি ফিরে প্রতিবেশীদের নিকট জানতে পারে তার মা ঐদিন সকালে ছোট বোনের শ্বশুড়বাড়ি নাজিরহাট থেকে বাড়িতে এসে ঘর তালাবদ্ধ দেখে আবারও বের হয়ে যায়। আগের দিন শুক্রবারে বাপ্পুর স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে তার বাপের বাড়ি যাওয়ায় ঘর তালাবদ্ধ ছিল। মা কোথায় গেছে সেটা জানার জন্য বোনের শ্বশুড়বাড়িসহ সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করা হয়। পরে আজ রবিবার সকালে জানতে পারে বাড়ি থেকে অনেক দুরের এলাকায় গাছের ডালের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মায়ের লাশ পাওয়া গেছে। পারিবার বা বাড়ির কারো সাথে তার মায়ের কোন বিবাদ নাই বলেও জানান তিনি। তবে কি কারণে এ বয়সে আত্মহত্যা করেছেন বুঝতে পারছেনা কেউ।

জানা গেছে, নিহতের স্বামী মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। নিয়মিত স্বামীর ভাতা পেতেন। মাসিক ১২ হাজার টাকা পেলেও সংসারের খরচের জন্য তার রাজমিস্ত্রি ছেলে বাপ্পুকে ৩ হাজার টাকা দিতেন। আড়াই বছর আগে মেয়ের বিয়ের জন্য মুক্তিযোদ্ধা লোন নিয়ে তা পরিশোধও করেন। এখনো একটি সাপ্তাহিক কিস্তি আছে। ওই কিস্তির প্রায় সব টাকা পরিশোধ করা হয়েছে বলে জানান বাপ্পু। শেষ বয়সে এসে বাড়ি থেকে অনেক দুরে গিয়ে কেন তার মা আত্মহত্যা করেছে সেটার জবাব খুজে পাচ্ছেনা ছেলে বাপ্পু।

কোন মন্তব্য নেই