মীরসরাইয়ে যুবককে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা

0
নিহত মোহাম্মদ হারুন

চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজেলার জোরারগঞ্জে পূর্ব শক্রুতার জেরে মোহাম্মদ হারুন (৩৫) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মে) সকাল ১১টার দিকে জোরারগঞ্জ থানার হিঙ্গুলী ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মধ্যম জামালপুর এলাকার নুর আহাম্মদ ভূইয়া বাড়ির পাশে হারুণকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করার পর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

নিহত হারুন খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় থানার মাষ্টারপাড়া এলাকার মৃত জসিম উদ্দিনের পুত্র। তার দুই ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সকালে হারুন সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে আসলে তার দুইজন ড্রাইভার সোহেল ও শরিফ গাড়ি পরিষ্কার করছিল। হারুণের একটি সিএনজি অটোরিকশা দিনের বেলায় চালায় শরিফ ও রাতের চালায় সোহেল। এইসময় হিঙ্গুলী ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড মধ্যম জামালপুরের অলি আহম্মদের পুত্র সালাউদ্দিন (৩৮) পিছন দিক থেকে এসে মাথার বাম পাশে দা দিয়ে ঘাড় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে। সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে বারইয়ারহাট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে অবস্থা আশংকাজনক হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যায়।

প্রতক্ষ্যদর্শী হারুনের গাড়ির চালক মো. সোহেল বলেন, আমি এবং শরিফুল দুইজনে মিলে গাড়ি পরিষ্কার করছিলাম। এসময় সালাউদ্দিন এসে হারুনকে বলে যে, তুই কি বলতে চাস, এই কথা বলে তার হাতে থাকা দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। তবে এর আগের বিষয় আমি কিছু জানি না।

জোরাগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার এএসআই বাতেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মৃত্যুর বিষয়টি শুনেছি। তবে এখনো কেউ অভিযোগ করেনি। পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।

সিএমপির পাঁচলাইশ থানার ওসি (তদন্ত) সাদেকুর রহমান বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসা ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি, হারুনের সঙ্গে এক সিএনজি অটোরিকশা চালকের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তাকে কুপিয়ে আহত করে চালক। পরে চমেক হাসপাতালে নিয়ে আসলে তার মৃত্যু হয়।

কোন মন্তব্য নেই