ডিম যেভাবে খাওয়া হয় অন্য দেশে

0

ডিম বিশ্বে একটি উন্নতমানের ও সহজলভ্য আমিষ জাতীয় খাদ্য হিসেবে রীতিমতো প্রতিষ্ঠিত! প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় ডিম অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার। ছোট্ট একটি ডিম নানা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। আসুন জেনে নিই বিশ্বের অন্য দেশে ডিম কিভাবে খাওয়া হয়।

বাংলাদেশ ও ভারতে ডিম কারি: দুদেশের মাটিতে এই পদের চলই বেশি। বাসায় রান্না হোক বা নামি রেস্তোরাঁ, আম জনতার কাছে পরিচিত ও মুখরোচক খাবারের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে এই পদ।

ব্রিটেনে স্কচ এগ: ব্রিটেনে এই পদের চল খুব বেশি। সিদ্ধ ডিম সসেজে মুড়ে, ব্রেডক্রাম্ব দিয়ে হালকা ভাজা বা বেকড। ধোঁয়া ওঠা চা বা কফির সঙ্গে মূলত স্ন্যাকস হিসেবেই খাওয়া হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এগ স্যালাড: মার্কিন মুলুকে একটু স্বাস্থ্য সচেতন মানুষদের ডায়েট চার্টে জায়গা করে নিয়েছে এগ স্যালাড। একেবারেই মশলা ছাড়া সিদ্ধ ডিম, মেয়োনিজ ও সব্জি সহযোগে এগ স্যালাড প্রাতরাশে খুবই জনপ্রিয়।

শ্রীলঙ্কায় এগ হপার: শ্রীলঙ্কার খুবই জনপ্রিয় স্ট্রিট ফুড এগ হপার। প্রাতরাশেই মূলত চালের গুঁড়ো এবং নারকেল দুধ দিয়ে রাঁধা ডিমের এই পদের চল রয়েছে।

ইতালিতে ডেভিলড এগ: ইতালিতে ডেভিলড এগ একটু অন্য ভাবেই রাঁধা হয়। সিদ্ধ ডিমের উপর স্টাফড সব্জি এবং মেয়োনিজ নিয়ে স্ন্যাকস হিসেবে খাওয়া হয় ডেভিলড এগ।

ইজরায়েলে শাকশৌকা: ইজরায়েলের মুখরোচক প্রাতরাশ শাকশৌকা। ডিমের পোচের উপর রেড সস ছড়িয়ে, টোম্যাটো, লঙ্কা, পেঁয়াজ এবং গোলমরিচ দিয়ে রাঁধা হয় এই পদ।

ফ্রান্সে এগ এন কোকোত্তে: ফ্রান্সে এই পদের খুব চল রয়েছে। একেবারেই মশলা ছাড়া স্টিমড এগই হল এগ এন কোকোত্তে।

চীনে সেঞ্চুরি এগ: মুরগি, কোয়েল বা হাঁসের ডিম দিয়ে রাঁধা হয় এই পদ। চিনে এই পদ খুবই জনপ্রিয়।

টিউনিসিয়াতে ব্রিক: স্টাফড এগ, পার্সলে এবং পেঁয়াজ দিয়ে রেঁধে উপরে চিজ ছড়িয়ে খাওয়া হয় টিউনিশিয়ায়। ব্রিক সে দেশের খুবই জনপ্রিয় একটি ডিশ।

কোন মন্তব্য নেই