চট্টগ্রামে জরুরী হার্টের বাইপাসে জীবন ফিরে পেলেন ডাক্তার জননী

0
.

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে হার্টের জরুরী বাইপাস অপারেশনে জীবন ফিরে পেলেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এর শেষ বর্ষের ছাত্রী কাউসারা কাসেম এর মা নগরীর আকবরশাহ হাউজিং সোসাইটির বাসিন্দা রওশন আরা বেগম (৪৮)। তিনি চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতাল হার্ট সেন্টার এর মেডিকেল অফিসার ডা: মিলজার হোসোইন এর শ্বাশুড়ি ও বাংলদেশ রেলওয়ে কর্মকর্তা আবুল কাসেম এর স্ত্রী।

গত বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) রাতে তার হার্টের বাইপাস অপারেশন সম্পন্ন হয়।

রোগী রওশন আরা এর মেয়ে কাউসারা কাসেম জানান, আমার মা বিগত ২০ বছর যাবত ডায়াবেটিস রোগী সেই সাথে বিগত ১০ বছর হার্টের রোগে আক্রান্ত ছিলো। আমরা ২০১১ ও ২০১২ সালে তার হার্টে দুই বার এনজিওগ্রাম করাই যার মাধ্যমে তার হার্টে ব্লক আছে আমরা জানতে পারি। বিগত ১০ বছর ঔষধের মাধ্যমে চিকিৎসা চলছিলো।

গত বৃহস্পতিবার সকালে মা বুকে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভব করলে আমরা তাকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে নিয়ে আসি। ডা: অয়ন কুমার (ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজিস্ট) এনজিওগ্রাম করালে জানতে পারি মায়ের হার্টের বাম পাশের প্রধান করনারি আর্টারি ৯৯ভাগ বন্ধ। ডাক্তার জরুরী ভিত্তিতে অপারেশনের জন্য কার্ডিয়াক সার্জন ডা: সারওয়ার কামাল এর সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। ঐ দিনই ডা: সারওয়ার কামাল তাৎক্ষণিক অপারেশন করে দেন। আমার মা বর্তমানে ভাল আছেন।

এবিষয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতাল হার্ট সেন্টার এর চীফ কার্ডিয়াক সার্জন ডা: সারওয়ার কামাল বলেন, আমরা চট্টগ্রামে প্রতিদিন ২৪ ঘন্টা হার্টের সকল ধরণের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি। রওশন আরা রোগীটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ছিলো। রোগীর বাম হাতের রক্তনালী (ংঁনপষধারধহঅধৎঃবৎু) পুরোপুরি বন্ধ ও ডান দিকের রেডিয়াল আর্টারীতেও ব্লক সেই সাথে ডান দিকের কিডনী রক্তনালীতে ব্লক ছিল। এই ছাড়াও তার বাম দিকের প্রধান রক্তনালী (ষবভঃ সধরহ) ৯৯ ভাগ ব্লক ও রোগীর রক্তের গ্রুপ ছিলো বি নেগেটিভ। রক্ত প্রাপ্তির সাথে সাথে আমরা (ঐ দিনই) তার অপারেশন সম্পন্ন করি।

অপারেশন টিমে ছিলেন এনেস্থেসিওলজিস্ট ডা: মিছবাহ উর রহমানসহ কার্ডিয়াক সার্জারি টিমের অন্যান্য সদস্যরা।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন