এনার্জি ড্রিংকে আসক্তি!

0
.

অস্বীকার করছি না যে এনার্জি ড্রিংক খাওয়ার পর শরীরে কোনো অনুভূতিই হবেনা, হবে। তবে সেটাকে কোনোভাবেই এনার্জি পাওয়া বলা যায় না। বরং এটি দীর্ঘমেয়াদে আমাদের শক্তি নষ্টের একটা ক্ষতিকর পদ্ধতি।

কারণ এতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যাফেইন ও উচ্চমাত্রার সুগার। ২৫০ মিলিলিটারের একটা ক্যানে ক্যাফেইন থাকে প্রায় ৮০ মিলিগ্রাম যেখানে ৩৩০ মিলির একটা কোল্ডড্রিংস ক্যানে ক্যাফেইন থাকে সর্বোচ্চ ৩২ মিলিগ্রাম।

জানেন কি! বাজারের অনেক নাম সর্বস্ব এনার্জি ড্রিংকের ৬০ মিলির বোতলে ১৬০ মিলি পর্যন্ত ক্যাফেইন থাকে। যা নিয়মিত পান করলে এটা নেশায় পরিণত হবে।

এনার্জি ড্রিংক নিয়মিত পানে এর অতিরিক্ত ক্যাফেইন শরীরের ওজন খুব দ্রুত বাড়াবে। এছাড়াও উচ্চ রক্তচাপ, দাঁতের ক্ষয়, ঘুমে সমস্যা, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি ও মাথাব্যাথাসহ নানা জটিলতা তৈরি হবে।

এক বোতল এনার্জি ড্রিংক পানের ২৪ ঘণ্টা পর এটি শরীরের স্বাভাবিক রক্তচাপে বাধা দেয়, কোষ্ঠকাঠিন্য তৈরি করে এবং ক্লান্তি ভর করে।

অনেক এনার্জি ড্রিংকের PH ৩ এটা এতটাই ক্ষতিকর যে দাঁতের এনামেল গলিয়ে ফেলতে পারে। এটি খাদ্যনালির মিউকাস মেমব্রেন নষ্ট করে দেয়।

শরীরে কোলেস্টরলের পরিমান বাড়ায়, হাড় দুর্বল হয়ে যায়।

শিশু,গর্ভবতী নারী এবং দুদ্ধদানকারী মায়েদের ক্ষেত্রে এনার্জি ড্রিংক বয়ে আনতে পারে সীমাহীন ক্ষতি।
দেশে কোনো এনার্জি ড্রিংকের অনুমোদন দেয়নি বিএসটিআই। আসুন সচেতন হই। অনুমোদনহীন এসব পানীয় পান থেকে বিরত থাকি। সুস্থ থাকি।

কোন মন্তব্য নেই