ঈদে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে ডা. শাহাদাত
ব্লিচিং পাউডার ছিটানোর মাধ্যমে ডেঙ্গুসহ অন্যান্য ভাইরাস প্রতিরোধ সম্ভব

0
ব্রেকিং নিউজ
  •  

       

                     

       

                     

       

                     

       

                     

       

                     

       

                     

       

.

পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে বিএনপির কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির ডাঃ শাহাদাত হোসেন জমিয়তুল ফালাহ জামে মসজিদে ঈদুল আযহার নামাজ শেষে ডিসিরোডস্থ নিজ বাসভবন রহমান ম্যানসনে যান এবং সেখানে কোরবানীর পশু জবাই করেন।

বিএনপি ও অংগ সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মী সাধারণ মানুষের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। সকাল হতে নগরীর ৪১ টি ওয়ার্ড ও চট্টগ্রাম-৯ সংসদীয় আসনের তৃণমূলের নেতাকর্মী ও বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষ তার বাসভবনে আসতে থাকলে ডাঃ শাহাদাত হোসেন তাদেরকে স্বাগত জানান।

এ সময় মহানগর বিএনপি ও অংগ সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বসাধারণের সাথে শুভেচ্ছাবিনিময় ও আপ্যায়ন করা হয়।

তিনি গত ১২ আগস্ট ঈদের দিন সোমবার বিকালে ১৭ নং পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা ও এডিশ মশাসহ অন্যান্য ভাইরাস প্রতিরোধে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে কার্যক্রম শুরু করার প্রক্কালে  সাথে আলাপকালে বলেন, চট্টগ্রাম নগরীকে ডেঙ্গু ভাইরাস থেকে মুক্ত করতে হলে জনসাধারণকে সচেতন করতে হবে। ৪১টি ওয়ার্ডে ব্লিচিং পাউডার ছিটানোর মাধ্যমে ডেঙ্গুসহ অন্যান্য ভাইরাস প্রতিরোধ সম্ভব। আমি গত ৫ আগস্ট সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে ডেঙ্গু হেলথ সেন্টারসহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলাম তারাই ধারাবাহিকতায় ডেঙ্গু হেলথ সেন্টারের মাধ্যমে প্রতিদিন সকাল ১১ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত চিকিৎসা সেবা চলছে।

৯ আগস্ট সাংবাদিকদের মাধ্যমে কিভাবে এডিশ মশার লার্ভা ধ্বংস করা যায় সলিশন তৈরী প্রক্রিয়া যাহা ১০ লিটার পানির সাথে ১৪২ গ্রাম ৩৫% ব্লিচিং পাউডার (ক্যালসিয়াম হাইপোক্লোরাইট) মিশ্রণ করে ০.৫ ক্লোরিন সলিউশন তৈরী করে বাসার ছাদে ও অন্যান্য জায়গায় জমানো পানিতে ¯েপ্র করা এবং সরাসরি ৩৫% ব্লিচিং পাউডার (ক্যালসিয়াম হাইপোক্লোরাইট) যেখানে এডিশ মশাসহ অন্যান্য ভাইরাস এর উৎপত্তিস্থল সেখানে ছিটানোর পরামর্শ দিযেছিলাম।

এসময় তিনি ১৭ নং পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে স্থানীয় কাউন্সিলরসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে নিয়ে এডিশ মশার উৎপত্তিস্থলে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

এ কার্যক্রম ধারাবাহিকভাবে প্রতিটি ওয়ার্ডে চালিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।

ডাঃ শাহাদাত হোসেন আরো বলেন, আওয়ামী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃষকেরা যেভাবে ধান বিক্রি করে ন্যায্য মূল্য পায়নি, ঠিক তদ্রুপভাবে সাধারণ চামড়া বিক্রিতেরা আওয়ামী সিন্ডিকেট চামড়া ব্যবসায়ীদের জন্য চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পেয়ে রাস্তায় চামড়া পেলে দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। দেশে আজ চামড়া শিল্পকে যেভাবে ধ্বংস করা হচ্ছে, আগামী দিনে কেউ চামড়ার ব্যবসায় আসবে না। ফলে দেশের বৃহৎ চামড়া শিল্পটি ধ্বংস হয়ে গেলে হাজার হাজার শ্রমিক ও সাধারণ ব্যবসায়ীরা পথে বসবে।

ডাঃ শাহাদাত হোসেন আরো বলেন, ওয়াসার পানির মূল্য বৃদ্ধির ফলে সাধারণ জনগণের দুর্ভোগ বেড়ে গেছে। আবাসিক গ্রহকদের প্রতি ইউনিট পানির মূল্য ৯ টাকা থেকে ১৬ টাকা এবং বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে ২৭ টাকা থেকে ৪০ টাকায় বৃদ্ধি করায় সাধারণ গ্রাহকদের দুর্ভোগের সীমা নেই। অনতিবিলম্বে জনগণের দুর্ভোগ কমাতে নিরিবিচ্চিন্নভাবে পানি সরবরাহ ও পানির মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখার আহবান জানান। অন্যাথায় জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলনে যাওয়া ছাড়া আর কোন পথ খোলা নেই।

ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়েনা কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়া উর রহমান জিয়া, মহানগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এ. কে এম আরিফুল ইসলাম ডিউক, পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী এমরান উদ্দিন, নাসিম চৌধুরী, মো. ফারুক, মো. বাবুল, মো. আলী, জিয়াউল হক, মো. সেলিম প্রমুখ।

কোন মন্তব্য নেই